অক্টোবর ২১, ২০২০ ৩:৩৪ পূর্বাহ্ণ

রাবিতে আবরার হত্যার বিচার ও রাবি ভিসি প্রো-ভিসির পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ

শেয়ার করুন

রাবি প্রতিনিধি: রাবি ভিসি ও প্রো-ভিসির পদত্যাগ এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার বিচাররের দাবি জানিয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।
বুধবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে মানববন্ধনের মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু হয়। পরে সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্র্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়।

এসময় দূর্র্নীতিমুক্ত ক্যাম্পাস চাই, দূর্নীতির আস্তানা ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও, একদফা এক দাবি ভিসি প্রো-ভিসির পদত্যাগ চাই, ভারতের দালালেরা হুশিয়ার সাবধান, স্বজন প্রীতির আস্তানা ভেঙ্গে দাও গুড়িয়ে দাও, ঘুষ খোর প্রো-ভিসি পদত্যাগ কর করতে হবে। চাঁদাবাজের বিরুদ্ধে, আগুন জ্বালাও একসাথে। শিক্ষা সন্ত্রাস এক সাথে চলে না, চলে না। ভিসি প্রো-ভিসির পদত্যাগের দাবিতে বিভিন্ন ফেস্টুন ব্যবহার ও স্লোগান দিতে থাকে শিক্ষার্থীরা।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্যে প্রো-ভিসির বিরুদ্ধে দর-কষাকষির যে অডিও ক্লিপ বের হয়েছে তিনি সেটি অস্বীকার করেছেন। প্রো-ভিসি তার অপকর্ম অস্বীকার করলেও যথাযথ প্রমাণ দেখাতে পারেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের মত একটা জায়গায় এ ধরনের দূর্নীতিবাজ প্রো-ভিসির এই চেয়ারে বসার কোন অধিকার নাই। অনতিবিলম্বে তাকে পদত্যাগ করতে হবে। পদত্যাগ না করলে দূর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

আরো বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি যে ‘জয় হিন্দ’ স্লোগান দিয়েছেন এটা রাষ্ট্রদোহীতার শামিল। । তিনি জয় হিন্দ শব্দ ব্যবহার করে এ দেশের ত্রিশ লাখ শহীদের সাথে বেইমানি করেছে। তাকে ভারতের দালাল বলেও অ্যাখ্যা দিয়েছেন তারা। ভিসিকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে হবে এবং অতি দ্রুত পদত্যাগ করতে হবে।
বক্তারা আরো বলেন, বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যায় দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি ও ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের মত সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে লিপ্ত ছাত্র সংগঠনকে নিষিদ্ধের দাবি জানান তারা। দেশের প্রত্যেকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ প্রতিনিয়তই তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড অব্যাহত রেখেছে। ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীরা নিরাপদে চলাফেরা করতে পারে না। হলের সিট বাণিজ্য থেকে শুরু করে সকল প্রকার অন্যায়ারে সাথে ছাত্রলীগ ওতপ্রোতভাবে জড়িত রয়েছে। ছাত্রলীগের মত সন্ত্রাসী সংগঠন কখনোই শিক্ষাথী বান্ধব সংগঠন হতে পারে না। তাই ছাত্র সংগঠন হিসেবে ছাত্রলীগকে ছাত্র সমাজের প্রতিনিধিত্ব করার কোন অধিকার নেই।
এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মোর্শেদের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, রাকসু আন্দোলন মঞ্চের সমন্বয়ক আব্দুল মজিদ অন্তর, রঞ্জু হাসানসহ আরো অনেকে। সমাবেশে প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *