সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০ ১:০০ অপরাহ্ণ

মাটিরাঙ্গায় বিজিবি ও গ্রামবাসীর সংর্ঘষে বিজিবি সদস্যসহ নিহত ৫

শেয়ার করুন

শংকর চৌধুরী,খাগড়াছড়ি

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা পৌরসভার গাজীনগর এলাকায় মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে ব্যক্তিমালিকানাধীন বাগানের গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে বিজিবি’র সাথে  গ্রামবাসীর সংঘর্ষে একজন বিজিবি সদস্যসহ ৫জন নিহত হয়েছে। ঘটনার পর পর এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, বাগান মালিক সাহাব মিয়া সকালে তার নিজের বাগান থেকে বেশকিছু গাছ কাটে। গাছগুলো গাড়িযোগে নেয়ার সময় গাছগুলো অবৈধ দাবি করে বিজিবি সদস্যরা জব্দ করে তাদের হেফাজতে নিতে চায়। এক পর্যায়ে পুরো এলাকাবাসী সমবত হয়ে বিজিবি সদস্যদের প্রতিহত করার চেষ্টা করলে এলাকবাসীর সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় বিজিবি সদস্যরা জড়ো হওয়া লোকদের নিয়ন্ত্রণে গুলিবর্সণ করলে ঘটনাস্থলেই ৪০ বিজিবি সদস্য শাওন, বাগান মালিক মোঃ সাহাব মিয়া প্রকাশ মুছা (৫০), সাহাব মিয়ার ছেলে আহম্মদ আলী ও এলাকাবাসী মোঃ আলী আকবর হাসপাতালে নিহত হয়। নিজের স্বামী ও সন্তানের মৃত্যু সংবাদ শুনে সাহাব মিয়ার স্ত্রী রঞ্জু বেগম হৃদ যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান।এছাড়া গুরুতর আহত অবস্থায় মো: মফিজ মিয়া ও মো: হানিফ নামের দুই গ্রামবাসীকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এরমধ্যে মফিজ মিয়া পথিমধ্যে মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন মাটিরাঙার পৌর সভার মেয়র।

মাটিরাঙ্গা পৌর মেয়র সামছুল হক একজন বিজিবি সদস্যসহ পাঁচ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে জানান, গাছ কাটাকে  কেন্দ্র করে অনাকাক্সিক্ষত ও হৃদয় বিদারক ঘটনা ঘটেছে।

পত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে বিজিবি সদস্যসহ দুই জনের মরদেহ মাটিরাঙা উপজেলা হাসপাতালে এবং দুই জনের মরদেহ উদ্ধোরের কাজ চলছে।জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস  ও পুলিশ সুপার মো: আব্দুল আজিজসহ প্রশাসনের উধ্বর্তন কর্মকতারা পরিদর্শনে করে ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়ে এলাকাবাসীকে শান্ত থাকার আহবান জানা।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম সালাউদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আমরা কাজ করছি।এদিকে জেলা প্রতাপ চন্দ্র  বিশ্বাস জানিয়েছেন, এঘটনায় অতিরিক্ত জেলা মেজিস্ট্রেট খন্দকার রেজাউল করিমকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গ্রহণ করা হয়েছে।

 


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *