সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২০ ৭:৩১ পূর্বাহ্ণ

নতুন প্রজন্ম যারা শিক্ষায় শিক্ষিত হবে তারা দেশের যোগ্য সম্পদে পরিণত হবে এটাই আমার আশা-মুহাম্মদ আব্দুল হালিম চৌধুরী

শেয়ার করুন

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মুহাম্মদ আব্দুল হালিম চৌধুরী ।তিনি বরুমছড়া শহীদ বশরুজ্জামান উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক  ও আনোয়ারা উপজেলা  বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদকও । তিনি সাপ্তাহিক পূর্ব বাংলা পত্রিকাকে বিভিন্ন প্রশ্নের আলোকে একটি সাক্ষাৎকার দেন। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেন আমাদের আনোয়ারা প্রতিনিধি রবিউল আলম রবিন।নিচে তা বৃহৎ পাঠক কিংবা ভিজিটরদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো।
রবিনঃ– আসসালামু আলাইকুম স্যার কেমন আছেন আপনি?
হালিম চৌধুরী :- ওয়ালাইকুম সালাম আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি ।
রবিনঃ- শিক্ষকতা পেশায় কেন আসলেন?
হালিম চৌধুরী :-অন্য পেশার থেকে শিক্ষকতা বেছে নেয়ার কারণ হলো ছাত্রজীবন থেকেই যারা ভালো শিক্ষক ছিলেন তাদের প্রতি অগাধ ভক্তি-শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা ছিল। আমরা যাদের হাতে মানুষ হয়েছি তাদের মতো হওয়ার ইচ্ছা ছিল। সেখান থেকেই শিক্ষকতায় আসা।
রবিনঃ– শিক্ষক না হলে কী হওয়ার স্বপ্ন ছিল?
হালিম চৌধুরী:– আমার স্বপ্ন ছিল একজন শিক্ষক হওয়ার তাই সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়েছে।
রবিনঃ– শিক্ষক হিসাবে কখনো কি কোন বিষয়ে চিন্তিত বা ভয় পান?
হালিম চৌধুরী: অন্যতম ।অথচ শিক্ষকের সঠিক মূল্যায়ন হচ্ছে না দেখে ভয় হয় আর চিন্তিত হতে হয়।
রবিনঃ– শিক্ষায় পাসের হার বাড়ছে কিন্তু গুণগত শিক্ষার মান কমছে, কারণ কী?
হালিম চৌধুরী:– মূলত একজন শিক্ষাকে এখন অনেকটা বাণিজ্যিক চিন্তা ভাবনা করা হয়। যারা শিখছে তারা একটা চাকরির চেষ্টা করছে। আর যারা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দিচ্ছে তারা অনেকে বানিজ্যিক চিন্তা করে। ফলে শিক্ষার যে মূল উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য তা পূরণ হচ্ছে না। পাসের হার বাড়ছে, গুণগত মান উন্নত হচ্ছে না। এজন্য করণীয় হলো যে কারণে গুণগত মান ক্ষুণ্ন হচ্ছে সেটা চিহ্নিত করা। এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে তা সমাধান করা।
রবিনঃ– আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?
হালিম চৌধুরী: – বাকি জীবন এই মহান শিক্ষক পেশায়ই কাটানো। একজন ভালো শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শেষ করা।
রবিনঃ-নতুন প্রজন্মের জন্য আপনার উপদেশ কি?
হালিম চৌধুরী: – সকল ছাত্র, ছাত্রীদের বলবো নিজেরা কখনো যেন হীনমন্যতায় না ভোগেন যে আমরা একটা উপেক্ষিত শিক্ষা অর্জন করছি যেটার মূল্যায়ন নেই। মূল্যায়ন হয় নিজের যোগ্যতা দিয়ে-ই ।আমার এটাই পরামর্শ যে, ছাত্র ছাত্রীরা যেন কখনো হীনমন্যতায় না ভোগে। তাদের লক্ষ্য পূরণ না হওয়া পযর্ন্ত। নতুন প্রজন্ম যারা শিক্ষায় শিক্ষিত হবে তারা দেশের যোগ্য সম্পদে পরিণত হবে এটাই আমার আশা
রবিনঃ-জনসাধারণের উদ্দেশ্য কিছু বলতে চান?
হালিম চৌধুরী: – হ্যাঁ জনগণের উচিত সঠিক জ্ঞান উপলব্ধি করা এবং জ্ঞানী গুণী ব্যক্তিকে সম্মান করা।
রবিনঃ-সাপ্তাহিক পূর্ব বাংলা সম্পর্কে আপনার অভিমত কি?
হালিম চৌধুরী: – আন্তরিকতার সহিত জানাচ্ছি যে সাপ্তাহিক পূর্ব বাংলা প্রকাশিত হচ্ছে বাংলাদেশ, চট্রগ্রাম তথা আনোয়ারা, বারখাইন ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের মতামত /সমস্যা তথা জনকল্যাণে এই সাপ্তাহিক পত্রিকা প্রয়োজনীয় ভুমিকা রাখবে সর্ব মহলের ও রাজনৈতিক, মূল্যবোধ সংক্রান্ত বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টিতে সহায়ক হবে। পাশাপাশি যোগাযোগের সমস্যা তথা রাস্তাঘাট -সংস্কার ও নির্মাণে উর্ধতন মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ পূর্বক তা সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *