জানুয়ারি ১৮, ২০২১ ৪:৫২ পূর্বাহ্ণ

মেজর জিয়ার নেতৃত্বে বাংলাদেশ নামক মানচিত্র অর্জিত হয়েছিল

শেয়ার করুন

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি চসিক নির্বাচনে বিএনপি দলীয় মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে মেজর জিয়াউর রহমান স্বাধীনতা ঘোষনার মাধ্যমে এদেশের জনগণ যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। তৎকালীন সময়ে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দরা পার্শ্ববর্তী দেশে আশ্রয় নিয়েছিল। জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে মেজর জিয়ার নেতৃত্বে চট্টগ্রাম থেকে মুক্তিযুদ্ধের যুদ্ধপর্ব শুরু হয়েছিল। বর্তমানে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের পরিবারের বিরুদ্ধে, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া এবং বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে দূরে রাখার জন্য দেশী বিদেশী ষড়যন্ত্র ১/১১’র মাধ্যমে শুরু হয়েছিল যার ধারাবাহিকতা বর্তমান ভোটার বিহীন সরকারও অব্যাহত রেখেছে। তাই আগামী দিনে স্বাধীনতা যুদ্ধের মূল স্তম্ভ গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধারের জন্য, জনগণকে ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য এবং দেশের বাগস্বাধীনতার জন্য ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে এই সরকারের পতন ঘটাতে হবে। প্রকৃত পক্ষে মেজর জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ নামক মানচিত্র অর্জিত হয়েছিল।

তিনি আজ সন্ধ্যা ৬ ঘটিকার সময় নগরীর লালখান বাজার ওয়ার্ডে চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা দলের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলজার বেগমের সভাপতিত্বে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দুঃস্থদের মাঝে কম্বল বিতরণ ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ কথা বলেন। আলোচনা সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর। তিনি বলেন, দেশ আজ গণতন্ত্র বিহীনভাবে চলছে। যা আর বেশি দিন চলতে দেওয়া যাবে না। বিএনপি সবসময় দেশের দুঃসময়ে জনগণের পাশে ছিল, আছে এবং থাকবে। তাই এই বিজয় দিবসের শপথ হউক দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং বাংলাদেশের মানুষের আশা আকাঙ্খার মূল ভিত্তি গণতন্ত্রের উত্তরণ। উক্ত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, মহানগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ১৪নং ওয়ার্ডের চসিক নির্বাচনে বিএনপির দলীয় কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুল হালিম শাহ আলম, মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন, লালখান বাজার ওয়ার্ড বিএনপির সাধারনণ সম্পাদক নাসিম আহমদ। সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা দলের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলজার বেগম বলেন, বাংলাদেশের সফল রাষ্ট্র নায়ক স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব রক্ষায় শহীদ জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে দেশের স্বাধীনতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন এবং তাঁর যোগ্য সহধর্মীনি দেশনেত্রী বেগম জিয়া বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক সূচনায় জনপ্রিয় নেত্রী। তাদের ধারাবাহিকতায় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বাংলাদেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় বিচক্ষণ নেতাই পরিণত হয়েছেন। দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের জন্য বর্তমান সময়ে তারেক রহমানের নেতৃত্বের বিকল্প নেই। তাই জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে নানা মুখী ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন বেগবান করার আহবান জানান। মহানগর মহিলা দলের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুন্নাহার লিজা পরিচালনায় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আলী মর্তুজা খান, সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া, আব্দুল আহাদ রিপন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদিকা কাউন্সিলর প্রার্থী মনোয়ারা বাবুল, খুলশী থানা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক সাইফুল আলম, কোতোয়ালী থানা ছাত্রদলের সোনা মানিক, মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, সাদমান আলী শাওন, চকবাজার থানা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা আলতাজ বেগম, ১৪নং লালখান বাজার ওয়ার্ড সভানেত্রী জাহানারা বেগম মনি, যুগ্ম সম্পাদিকা কমলা তানিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদিকা আকাশী বেগম, জামাল খান ওয়ার্ড মহিলা দলের মহিলা দল নেত্রী খালেদা বেগম, কোহিনুর বেগম, আফসানা বেগম প্রমুখ।


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *