জুন ২১, ২০২১ ৪:৪৭ অপরাহ্ণ

অবক্ষয় ও অপসংস্কৃতি চর্চা থামিয়ে যুব সমাজকে আদর্শিক পথে ফেরাতে হবে

শেয়ার করুন

হাটহাজারী ফরহাদাবাদ কাদেরীয়া চিশতীয়া পরিষদের উদ্যোগে পবিত্র ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (দ.), ফাতেহায়ে ইয়াজদাহুম গরীবে নেওয়াজ হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন চিশতী (রহ.) এর বার্ষিক ওরশ মোবারক উদযাপন ও এলাকার সকল মরহুম-মরহুমাদের ঈসালে সাওয়াব উপলক্ষে আজিমুশান ৩২তম সুন্নি সম্মেলন ১২ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার হাটহাজারী ফরহাদাবাদ মহিউদ্দিন মুন্সি বাড়ী প্রাঙ্গণে কাদেরীয়া চিশতীয়া পরিষদের সভাপতি এস.এম. রাকিব উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবক আলহাজ্ব সৈয়দ আজম উদ্দিন। উদ্বোধক ছিলেন চট্টগ্রাম ডক্টরস ল্যাব এন্ড ডক্টরস হাসপাতাল এর চেয়ারম্যান ডা. মুহাম্মদ নিজাম মোরশেদ চৌধুরী। প্রধান বক্তা ছিলেন, ঢাকা মোহাম্মদপুর কাদেরীয়া তৈয়্যবীয়া আলিয়া মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ আল্লামা মুফতি আবুল কাশেম মুহাম্মদ ফজলুল হক (মা:জি:আ:)। বিশেষ বক্তা ছিলেন, নারায়নগঞ্জ জামেয়া গাউসিয়া সুন্নিয়া তৈয়্যবীয়া তাহেরীয়া মাদ্রাসার সাধারণ সম্পাদক শায়খ মাওলানা আব্দুল মোস্তফা রাহিম আল আযহারী, কক্সবাজার হযরত জঙ্গলীপীর ইসলামিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সুপার হযরত মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল আজিজ রজভী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, কাদেরীয়া চিশতীয়া পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মুহাম্মদ এনামুল হক ছিদ্দিকী। হযরত মাওলানা মুহাম্মদ সিরাজ উদ্দিন আলকাদেরীর সঞ্চালনায় সুন্নি সম্মেলনে প্রধান অতিথি সৈয়দ আজম উদ্দিন বলেন, সুন্নিয়তই ইসলামের মূল নির্যাস। সুন্নিয়ত ভিত্তিক গণমূখী সমাজ প্রতিষ্ঠায় সুন্নি পন্থি উলামা-জনতাকে ঐক্যবদ্ধ হয় মাঠে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে। সুন্নি জনতার উদাসীনতা ও সাংগঠনিক ক্ষেত্রে পিছিয়ে থাকার ফলে নানান কায়দার বাতিল মতাদর্শীরা শক্ত আসন গেড়ে বসেছে। কুরআন সুন্নাহর মনগড়া অপব্যাখ্যার কারণে জঙ্গিবাদ ও উগ্রবাদ আজ মাথাছাড়া দিয়ে উঠেছে। এদের মোকাবিলায় সুন্নি উলামা জনতাকে বুদ্ধিবৃত্তিক, সাংগঠনিক ও প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগ নিয়ে এগুতে হবে। উদ্বোধক ডা. নিজাম মোরশেদ চৌধুরী বলেন, সুন্নিয়তের সমাজ ব্যবস্থা কায়েম ছাড়া কোথাও শান্তি আসবে না। সুন্নিয়তকে দৃঢ়ভাবে ধারণ করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। প্রধান আলোচক আল্লামা আবুল কাশেম ফজলুল হক বলেন, যুব সমাজ আজ নানাভাবে অবক্ষয় ও কলুষতার শিকার। তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার এবং নানাবিধ অপসংস্কৃতি যুব সমাজকে বিপথে টানছে। অবক্ষয় ও অপসংস্কৃতি থেকে পরিত্রাণ পেতে যুব সমাজকে নৈতিক ও আদর্শিকভাবে উজ্জ্বীবিত করতে হবে। বিশেষ বক্তার বক্তব্যে মাওলানা আব্দুল মোস্তফা রাহিম আল আজহারী বলেন, কাদেরীয়া চিশতীয়া পরিষদ বত্রিশ বছর ধরে সুন্নিয়ত ও মানবসেবার আদর্শকে ধারণ করে তৃণমূলে অবদান রাখছে। এ ধরণের আদর্শিক সংগঠন আজ বড় জরুরি। বিশেষ অতিথি ছিলেন ফটিকছড়ি নানুপুর লায়লা-কবির ডিগ্রী কলেজের অধ্যাপক মাওলানা মীর মুহাম্মদ আবদুর রহিম মুনিরী, উপাধ্যক্ষ মাওলানা গোলাম মুহাম্মদ খান সিরাজী, অধ্যক্ষ আল্লামা মুহাম্মদ আবুল বশর ছিদ্দিকী, মাওলানা মুহাম্মদ নুরুচ্ছাফা, সৈয়দ মুহাম্মদ নুরুল আলম, সৈয়দ মুহাম্মদ আবু আজম, শাহ্জাদা সৈয়দ মুহাম্মদ জামাল উদ্দীন, সৈয়দ মুহাম্মদ পারশেদ বিন আনোয়ার, মুহাম্মদ উল্লাহ মেম্বার, আবু আহমদ শেয়ান, মাওলানা মুহাম্মদ আলি মরতুজা সিরাজী, শাহজাদা সৈয়দ ফয়জুল আবেদীন আরমান, মাওলানা মুহাম্মদ অহিদুল আলম, মুহাম্মদ নুরুল আবছার, মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম, মুহাম্মদ মোখতারুল আলম, মুহাম্মদ মহসিন আলী, মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম, মুহাম্মদ আবদুল গনি, মুহাম্মদ সিরাজ উদ্দিন লিটন, মুহাম্মদ ওসমান ফারুক পারভেজ, মাওলানা মুহাম্মদ হোসাইন, মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন, মুহাম্মদ নাহিম উদ্দিন রিকু, মুহাম্মদ গোলাম কিবরীয়া টিপু, মুহাম্মদ রবিউল হোসেন রুবেল, মুহাম্মদ নুরুন্নবী মহরম, মুহাম্মদ জিয়া উদ্দিন বাবলু, মুহাম্মদ মঈনুদিন রিফাত, মুহাম্মদ ফজলুল আমিন জুয়েল, এসএম সুলতান মাহমুদ তাহা, মুহাম্মদ আসিবুর রিসাদ ফাহিম, মুহাম্মদ জালাল উদ্দিন রিফাত প্রমুখ। সালাত সালাম শেষে বৈশ্বিক শান্তি, বিশ্বের নিপীড়িত মানবতার মুক্তি এবং মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ, দেশ ও বিশ্ববাসীর শান্তি সমৃদ্ধি কামনায় মুনাজাত পরিচালনা করেন অধ্যাপক মাওলানা মীর মুহাম্মদ আব্দুর রহিম মুনীরী।


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *